সালিশে সাক্ষ্য দেয়ায় হত্যার হুমকির পর চোখ উপড়ে ঘাড় ভেঙে হত্যা

Spread the love

সিলেট: সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলায় গরুর পা কাটার সাক্ষ্য দেয়ায় মাদরাসাছাত্র রবিউল ইসলামের দুটি চোখ নষ্ট করে, ঘাড় ভেঙে ও শরীরের একাধিক স্থানে সিগারেটের ছ্যাঁকা দিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনা মধ্যযুগীয় বর্বরতাকেও হার মানিয়েছে।

বর্বর এই খুনিদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও জড়িতদের ফাঁসির দাবি জানিয়েছেন নিহত রবিউল বাবা মো. আকবর আলী।

স্থানীয়রা জানায়, করপাড়া গ্রামের ছাদিকুর রহমান (৪৫) ও আব্দুল কাদিরের (৫০) ধানক্ষেতে চলে যায় গোয়াহরি গ্রামের আব্দুল হামিদের গরু। এ সময় ছাদিকুর রহমান ও আব্দুল কাদির গরুকে ধরে পা কেটে দেন। বিষয়টি দেখেছিল রবিউল ইসলাম। সাক্ষী হিসেবে সে এক সালিশ বৈঠকে বিষয়টি জানায়। এরপর থেকে ক্ষিপ্ত হয়ে প্রায় সময় রাস্তায় পেয়ে রবিউল ইসলামকে মারধর করতেন ছাদিকুর রহমান।

৭ অক্টোবর মুরিকোনা হাওরে গরুর ঘাস কাটতে গেলে রবিউলকে ছাদিকুর রহমান মারধর করেন। এ নিয়ে ৮ অক্টোবর রহমাননগর গ্রামের গণি মিয়ার বাড়িতে আরেকটি সালিশ বৈঠক হয়। ওই দিন বৈঠক শেষে ছাদিকুর রহমান রবিউল ইসলামকে দেখে নেয়ার হুমকি দিয়ে চলে যান। হুমকি দেয়ার মাত্র তিনদিনের মাথায় রবিউল ইসলাম খুন হয়।

এ বিষয়ে বিশ্বনাথ থানা পুলিশের ওসি শামীম মুসা বলেন, এ ঘটনায় মাজেদা বেগম নামের একজন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপর আসামিদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

আমাদেরকণ্ঠ/এসআই

Related posts