Amader Kantho- Bangla Online News Portal and Bangladeshi online news source for Game, Binodon, politics, national, international, lifestyle, sports, and many more factors.

ঢাকা, শনিবার, ৩ আশ্বিন ১৪২৮, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১

Facebook Facebook Facebook Facebook

‘মন্ত্রীর ফোনের’ পর মাদ্রাসার নেতত্ব ছাড়ল মামুনুল হকের পরিবার

আমাদের কণ্ঠ প্রতিবেদক:
প্রকাশিত: সোমবার, ১৯ জুলাই, ২০২১, ০৭:২৪
জামিআ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসা

রাতে সরকারের একজন মন্ত্রীর ফোন পেয়ে সকালেই মোহাম্মদপুর জামিআ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসা ছেড়ে গেছেন মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ও প্রয়াত শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হকের ছেলে মাওলানা মাহফুজুল হক। আজ সোমবার সকাল সাড়ে আটটায় তিনি কিছুসংখ্যক শিক্ষক-ছাত্রের উপস্থিতিতে মাদ্রাসার সব দরজা-জানালা বন্ধ করে মূল ফটকে তালা দিয়ে বেরিয়ে যান।

মাহফুজুল হক কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড বেফাকেরও মহাসচিব। তিনি বলেন, ‘গতকাল রোববার রাত ১টা ৫ মিনিটে সরকারের একজন মন্ত্রী তাঁকে ফোন করেছিলেন। মন্ত্রী বলেছেন, মাদ্রাসায় তালা দিয়ে চাবি কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের (বেফাক) সভাপতি মাওলানা মাহমুদুল হাসানের হাতে পৌঁছিয়ে দিতে। মন্ত্রীর কথার প্রতি সম্মান দেখিয়ে আমরা তালা দিয়েছি। এখন চাবি পৌঁছে দেব।

প্রায় দুই যুগ জামিআ রাহমানিয়া মাদ্রাসার কর্তৃত্ব নিয়ে শায়খুল হাদিসের পরিবার ও মুফতি মনছুরুল হকদের সঙ্গে বিরোধ চলছিল। ১৯৮৬ সালে মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠা হয়। দুই পক্ষই মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠার সঙ্গে যুক্ত ছিল। একপর্যায়ে কমিটি নিয়ে বিরোধ দেখা দিলে তা আদালতে গড়ায়। মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার শুরুর দিকে আল্লামা আজিজুল হক মাদ্রাসাটির প্রধান মুরব্বি বা ‌‌শায়খ পদে ছিলেন। পরে কিছুদিন মাদ্রাসার অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেন। ২০ বছর ধরে শায়খুল হাদিসের ছেলে মাওলানা মাহফুজুল হক এর অধ্যক্ষ হিসেবে আছেন। বর্তমানে কারাবন্দী হেফাজতে ইসলামের সাবেক যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হকও এ মাদ্রাসারই শিক্ষক ছিলেন।

জানা গেছে, স্থানীয় তিনজন ব্যক্তি জামিআ রাহমানিয়া আরাবিয়া সাত মসজিদ ও মাদ্রাসার জন্য ১৬ কাঠা জমি ওয়াক্ফ করেছিলেন। ওয়াক্ফ করার সময় দলিলে ওয়াকফকারীরা মোতোয়ালি হিসেবে থাকবেন, এমন কিছু ছিল না। তিনজন ওয়াকফকারীই মারা গেছেন। তবে জীবিত থাকতে ওয়াকফকারীদের একজন শায়খুল হাদিসদের রাজনৈতিক সম্পৃক্ততার অভিযোগে তাঁদের উচ্ছেদের জন্য ওয়াক্ফ এস্টেটে মামলা করেন। তিনি মুফতি মনছুরুল হকদের পক্ষ নেন। শেষ পর্যন্ত মনছুরুল হকেরা ওয়াক্ফ প্রশাসকের রায় পান। সে অনুযায়ী, ওয়াক্ফ প্রশাসন থেকে জেলা প্রশাসকের কাছে একাধিকবার দখলদারদের উচ্ছেদ করার আবেদন জানানো হয়। এর বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে মামলা করেন মাহফুজুল হকেরা। মামলাটি এখনো বিচারাধীন।

মাহফুজুল হকের ভাই মামুনুল হককে গ্রেপ্তারের পর বিষয়টি নতুন করে গতি পায়। সরকার ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তৎপর হয় মাহফুজুল হকদের মাদ্রাসা থেকে উচ্ছেদে। কিন্তু মামলাটি বিচারাধীন থাকায় উচ্ছেদ অভিযান চালানো যাচ্ছিল না। এরই মধ্যে কয়েক দিন ধরে গুঞ্জন ছিল যে পুলিশ যেকোনো সময় উচ্ছেদ অভিযান চালাবে। মাদ্রাসার সামনে পুলিশ সদস্যদের সংখ্যাও আগের চেয়ে বাড়ানো হয়।

বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক ও প্রকাশক: মো. জিয়াউল হক
চেয়ারম্যান: মিসেস নাজমা হক
উপদেষ্টা: এ.কে.এম. মর্তুজা, সাবেক যুগ্ম সচিব
ঠিকানা: শাঁহ আলী টাওয়ার (৩য় তলা)
৩৩, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ ।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি ।
©২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । আমাদেরকণ্ঠ২৪ ডট কম, জিয়া গ্রুপের একটি প্রতিষ্ঠান ।